বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:৫৭ অপরাহ্ন
ঘোষনা :
আন্দোলনের ডাক ডটকমে আপনাকে স্বাগতম , সর্বশেষ সংবাদ জানতে  আন্দোলনের ডাক ডটকমের সাথে থাকুন । আন্দোলনের ডাক ডটকমের জন্য  সকল জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে।  আগ্রহী প্রার্থীগণ জীবন বৃত্তান্ত, পাসপোর্ট সাইজের ১কপি ছবি ও শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্রসহ ই-মেইল পাঠাতে পারেন। শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ যে কোন বিশ্ববিদ্যালয় হতে স্নাতক পাস এবং বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে অধ্যয়নরত ছাত্র/ছাত্রীগণও আবেদন করতে পারবেন।   আবেদন প্রেরণের প্রক্রিয়াঃ  ই-মেইল: , প্রয়োজনে মোবাইলঃ  

ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে শতাধিক শিশু হাসপাতালে ভর্তি!

রেজউর রহমান তনুঃ / ৪৮ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১০:৫৭ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়ায় হঠাৎ ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে গত কয়েকদিনে শতাধিক শিশু হাসপাতালে ভর্তি!

মোঃ রেজাউর রহমান তনু, স্টাফ রিপোর্টার:- কুষ্টিয়ায় হঠাৎ করেই শীত জনিত কারণে শিশুদের অসুখের বেড়েছে। গত কয়েকদিনে কুষ্টিয়ায় শিশু রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় তাদের চিকিৎসা সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সদের। তবে আক্রান্তের মধ্যে ০-৫ বছর বয়সী শিশুর সংখ্যাই বেশী এবং তীব্র শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ (এআরআই), জ্বর, ঠান্ডা কাশিসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত বলে ওয়ার্ড সুত্রে জানা গেছে । গত কয়েকদিনে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের বর্হিরবিভাগসহ শিশু ওয়ার্ডে চিকিৎসা নিয়েছে প্রায় হাজার খানেক শিশু রোগী । তবে ০-৬ মাসের কম বয়সী শিশুরা এআরআই রোগে অধিক সংখ্যায় আক্রান্ত হচ্ছে বলে জানান চিকিৎসকরা।

এদিকে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের মাত্র ২০ টি বেড থাকলেও সেখানে গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ২১ জন শিশু রোগী ভর্তিসহ বারান্দা ও মেঝেতে যত্র তত্র বিছানা করে চিকিৎসা নিচ্ছে ৮০ জন শিশু রোগী। হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা গেছে, বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত শিশু ও স্বজনদের ভীড়ে শিশু ওয়ার্ডটি যেন মেছোহাটে পরিণত হয়েছে। কর্তব্যর এক নার্স জানান,এখন মাত্র ২০টি শয্যার স্থলে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৮০ জন রোগী। তাদের চিকিৎসা সেবা দিতে সিনিয়র নার্সসহ বেশ কয়েক ছাত্রী নার্স রীতিমত হিমসিম খেতে হচ্ছে । প্রতিদিন যত রোগী চিকিৎসা পেয়ে ছাড়পত্র নিয়ে বাসায় ফিরছে তার চেয়ে দিগুন আবার ভর্তি হচ্ছে বলে জানান ওই নার্স।এছাড়া ও ওয়ার্ডের জায়গা না পেয়ে মেঝেতে বিছানা করে চিকিৎসাধীন রোগীর স্বজনদের সাথে কথা বলে জানাগেল, চিকিৎসাধীন রোগীদের বেশীর ভাগই জ্বর, কাশি, ঠান্ডা জ্বরে ভূগছে শিশুরা।

২০১২ সালে ৩ মার্চ ৫শ শয্যা বিশিষ্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এই মেডিকেল কলেজ ৩ বছরের মধ্যে কাজ শেষ করার কথা থাকলেও ৯ বছরে কাজ হয়েছে অর্ধেক। যা কুষ্টিয়াবাসীর জন্য হতাশার এবং মেডিকেলে গিয়ে চিকিৎসা সেবা পাওয়ার স্বপ্ন একন দুঃস্বপ্ন হতে চলেছে। ঠিক সময়ে কাজ শেষ হলে ২০১৫ সালে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রোগী ভর্তিসহ চিকিৎসা সেবা পেতো কুষ্টিয়াসহ আশেপাশের জেলার রোগীরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

Archives

এক ক্লিকে বিভাগের খবর